২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
head banar ads here

এমন মেয়ে খুঁজে বের কর যে পড়তে ভালবাসে

সোমবার, ২৮/১২/২০১৫ @ ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ

Spread the love

Xe296TM300qN61Books_Newsshomoy-400x257ঢাকা: প্রেমে পোড়ো সেই মেয়েটির যার জীবনের প্রথম প্রেম ছিল বই। ভালোবাসো সেই মেয়েটিকে যে দামি জামা জুতো কিনে টাকা নষ্ট না করে বই কিনে ঘর ভরিয়ে ফেলে , টাকার মূল্য বাড়ায় সাথে ঘরেরও । যার আলমারিতে বই রাখতে গিয়ে কাপড় রাখবার জায়গা হয় না। যার কাছে সবসময় একটা পড়তে চাওয়া বইয়ের তালিকা থাকে, এবং প্রতিনিয়ত সে তালিকা বড় হতে থাকে। যার ১২ বছর বয়স থেকেই একটা লাইব্রেরী কার্ড করা আছে।

এমন একটা মেয়ে খুঁজে বের কর যে পড়তে ভালবাসে। তুমি তাকে দেখেই চিনতে পারবে, কারণ তার ব্যাগে সমসময়ই একটা পড়ে শেষ না করা বই থাকে । রাস্তায় বইয়ের দোকান দেখলেই সে আটকে যায়, পরম মমতায় চোখ বুলায় তাকে সাজানো বইগুলোর উপর,আর পছন্দের বইটা দেখতে পেলেই নিঃশব্দে চিৎকার করে উঠে। কখনও কোন অদ্ভুত মেয়েকে দেখেছ কোন পুরনো বইয়ের দোকানে দাড়িয়ে বই হাতে গন্ধ শুঁকতে ? এই সেই পড়ুয়া। এরা কখনও বইয়ের পাতার গন্ধ না নিয়ে থাকতে পারে না, পাতাগুলো যদি হয় হলদেটে ,তাহলে তো আরও না।

522f712100524-Untitled-8তাকে দেখবে রাস্তার ধারে কফির দোকানে অপেক্ষা করছে বই পড়তে পড়তে। যদি তার কফির মগে একটু উকি দাও,দেখবে সেখানে এখনও ক্রিম ভাসছে কারণ সে এরইমধ্যে ডুবে গেছে তার বইয়ে, লেখকের তৈরি পৃথিবীতে হারিয়ে ফেলেছে নিজেকে। বসে পড়তে পার সেখানে, হয়ত তোমার দিকে একটু কঠিন চোখেই তাকাবে সে, জান তো, পড়ার মাঝে বাঁধা পড়লে সেটা মোটেই পছন্দ করে না ওরা। তাকে প্রশ্ন করো বইটা তার কেমন লাগছে।

তাকে বরং আর এক কাপ কফি কিনে দিও।

তাকে জানাও মুরাকামিকে নিয়ে তুমি আসলেই কি ভাব। জানতে চাও ফেলোশিপের প্রথম অধ্যায়টা সে শেষ করতে পেরেছে কিনা। বুঝে নিও সে নিজেকে বুদ্ধিমান প্রমাণ করতে চাইছে যখন সে তোমাকে বলবে যে সে জেমস জয়েসের ইউলিসিস বুঝতে পেরেছে। জিজ্ঞেস কর- সে কি আসলে এলিসকে ভালবাসে নাকি এলিসের মত হতে চায়।

পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেম করাই সবচেয়ে সহজ। জন্মদিন, বার্ষিকী,বড়দিন –যে কোন উপলক্ষেই তাকে বই উপহার দিও । গানে, কবিতায় অথবা চিঠি লিখে কথার মালা উপহার দিও । তাকে দাও নেরুদা,পাউন্ড, সেক্সটন, কামিংসের বই। তাকে জানাও, কথা মানেই যে ভালবাসা এটা তুমি ঠিকই বুঝ । তোমাকে বুঝতে হবে যে সে বই আর বাস্তবের জগতের পার্থক্য জানে। তবে এটাও সত্যি, সে তার জীবনটাকে কিছুটা হলেও তার প্রিয় বইটার মত করে গড়ে নিতে চাইবে। চাইতেই পারে, সেখানে তোমার দোষ নেই একটুও।
অন্তত কোন না কোন ভাবে তাকে চেষ্টাটা তো করে দেখতে হবে।

তাকে মিথ্যে বোলো। যদি সে ব্যাকরণ বুঝে তাহলে সে তোমার মিথ্যে বলার প্রয়োজনটুকুও বুঝবে। কথার বাইরেও থাকে আরও অনেক কিছু ; প্রেরণা, নৈতিকতা, বিরোধ, কথোপকথন। তুমি একটা মিথ্যে বললেই পৃথিবী শেষ হয়ে যাবে না।

মাঝে মাঝে তাকে ব্যর্থতার স্বাদ দিও । কারণ পড়ুয়া মেয়েটা জানবে ব্যর্থতা থেকেই সবসময় চরম পাওয়া গুলো আসে। এটাও জানবে যে সবকিছুরই একটা শেষ আছে। সে জানে তুমি যে কোন সময়ই আবার নতুন করে শুরু করতে পার সবকিছু। এবং যতবারই শুরু কর না কেন প্রতিবারই তুমি জয়ী হবে। জীবনে চলার পথে ২/১ জন খলনায়কও থাকবে, এটাও সে জানে।

তুমি যা যা হতে পারনি তার জন্য ভয় কেন ? পড়ুয়া মেয়েরা বুঝে যে, মানুষও বইয়ের চরিত্রগুলোর মতই, আস্তে আস্তে গড়ে উঠে। টোয়াইলাইট সিরিজের চরিত্রদের কথা অবশ্য আলাদা।

যদি একটা পড়ুয়া মেয়ে খুঁজে পাও, তাকে আপন করে নিও। রাত দুটোয় ঘুম ভেঙ্গে যদি হটাৎ দেখ সে একটা বই বুকে জড়িয়ে ধরে অঝরে কাঁদছে, এক কাপ চা দিও তাকে তারপর শক্ত করে জড়িয়ে ধরে রেখ। কিছুক্ষণের জন্য সে হয়ত হারিয়ে যাবে, তোমার হয়ত মনে হবে তোমার বুকে মাথা রেখেও সে আসলে হেঁটে বেড়াচ্ছে অন্য কোন জগতে, ভয় পেও না, শেষ পর্যন্ত সে তোমার কাছেই ফিরে আসবে। সে এমনভাবে কথা বলবে যেন বইয়ের সব চরিত্রগুলোই বাস্তব, কারণ কিছুক্ষণের জন্য তারা আসলেই তাই।

উড়ন্ত কোন বেলুনে বসে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিও, অথবা কোন রক কনসার্টে , একশোটা বেলুন হাতে কোন নদীর পাড়ে দাড়িয়ে অথবা এর পরের বার যখন সে অসুস্থ হয়ে পড়বে তখন সাদামাটা ভাবেই তাকে বোলো ফোনে বা স্কাই-পি তে।

তোমরা তখন এত জোরে হাসতে থাকবে যে , এরপরও কেন হৃৎপিণ্ডটা ফেটে সমগ্র বুক রক্তে ভেসে যাচ্ছে না সেটা ভেবে তুমি অবাক হবে। তোমরা তোমাদের জীবনের গল্প লিখবে। অদ্ভুত নামের সব বাচ্চা থাকবে তোমাদের, নামের চেয়েও অদ্ভুত হবে তাদের রুচি-বোধ, ভালোলাগা মন্দলাগা। সে তোমাদের বাচ্চাগুলোকে “ ক্যাট ইন দা হ্যাট” এবং “আসলান” কে চিনিয়ে দিবে , সম্ভবত একই দিনে। বুড়ো বয়সে শীতকালে যখন একসাথে হাটতে বের হবে তোমরা, তার নিচু গলায় কিটসের কবিতা আবৃত্তি শুনতে শুনতে তোমার বুটের গায়ে লেগে থাকা তুষার ঝাড়বে তুমি।

পড়ুয়া মেয়েটির সাথে প্রেম করো কারণ তুমি তারই যোগ্য। কল্পনায় যত রঙ ধরা দেয় তার সবটুকু দিয়ে যে মেয়ে রাঙিয়ে দিতে পারবে তোমার জীবন এমন মেয়েই তোমার পাওয়া উচিৎ। তবে একঘেয়েমি, সস্তা সময়, বোধহীন ভালবাসা অথবা আনাড়ি প্রস্তাব ছাড়া যদি আর কিছু দেয়ার না থাকে তাকে তোমার, তবে তোমার একা থাকাই ভাল। তুমি যদি পৃথিবী এবং এর বাইরের অন্য সব পৃথিবীকে পেতে চাও, একই সাথে বাঁচতে চাও অনেকগুলো জগতে , উপভোগ করতে চাও অনেক রঙের সময়কে , তাহলে সেই মেয়েটিকে ভালোবাসো যে পড়তে ভালবাসে।

অথবা সবচেয়ে ভাল হয় যদি সেই মেয়েটিকে ভালবাসতে পারো যে লিখতে ভালবাসে।

মূল লেখা- “Date A Girl Who Reads” by Rosemarie Urquico/আরটিএমনিউজ২৪ডটকম/এন এ কে

জনমত জরিপ

????? ?? ??????? ???
??
1 Vote
??
0 Vote