১১ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং, ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
head banar ads here

আধার মানিক সড়ক ব্রিক সলিং করণে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা এলাকাবাসীর

সোমবার, ২০/১১/২০১৭ @ ৬:৪৬ অপরাহ্ণ

Spread the love

received_1577856862304534

আরটিএমনিউজ২৪ডটকম, সাতকানিয়া: মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে উন্নয়নের জোয়ার সর্বত্রে পৌঁছলেও এখনো চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার কেঁওচিয়া ইউনিয়নে মহাসড়কের পাশে কাদামাটির সড়ক রয়েছে। বিগত ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের হাজারো প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও আলোর মুখ দেখেনি এই জনপদের অধিবাসীগণ। বর্তমান চেয়ারম্যান সরকারদলীয় ও তারুণ্যের দক্ষ নেতৃত্ব হওয়াতে  এই সড়কটি দ্রুত আলোর মুখ দেখবে বলে আশাবাদী জনগণ।

চট্রগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের আধার মানিক স্থান থেকে নিমিষে দেখে যায় এই গ্রামীণ সড়কের করুণ অবস্থা।

এলাকাটি কৃষিকাজের জন্য খুবই উপযুক্ত এবং এখানে ধানসহ নানা ধরনের ফসল জন্মে, যা কয়েক দশক ধরে উপজেলার তথা দেশের কৃষি উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে চলেছে।

কিন্তু পরিতাপের বিষয়, কৃষিজাত পণ্য পরিবহন থেকে শুরু করে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম এই একটি কাঁচা রাস্তা। মাটির গঠনগত দিক দিয়ে রাস্তাটি এঁটেল মাটির হওয়ায় বর্ষার শুরু থেকে কয়েক মাস রাস্তাটিতে প্রায় হাঁটু সমান কাঁদা থাকে। এর ফলে ওই রাস্তায় চলাচল ও কৃষিপণ্য পরিবহন একরারেই অসম্ভব হয়ে পড়ে। এর পরও নিতান্ত প্রয়োজনের তাগিদে কষ্ট করে মানুষ রাস্তাটি ব্যবহার করে। এতে করে প্রায়ই নানা রকম দুর্ঘটনা ঘটে এবং কৃষক তাদের উৎপাদিত ফসল সঠিক সময়ে বাজারজাত করতে না পারায় প্রকৃত মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়। তাছাড়া স্কুল, কলেজ এবং মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীসহ শহরে অবস্থানরত ব্যবসায়ীরা এই কাদামাটির পথটি অতিক্রম করে মহাসড়কে উঠে শহর বা গন্তব্যস্থলে গমন করেন।

এলাকায় রয়েছে পুরনো মাজার, মসজিদ ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসা। রাস্তাটি এই এলাকার অধিবাসীদের জন্য চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। তাই রাস্তাটি পাকা করা অত্র অঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবি। এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান জসীম উদ্দীন, ভাইস চেয়ারম্যান ইব্রাহীম চৌধুরী ও কেঁওচিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মনির আহমদসহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা এলাকাবাসীর।