২২শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
head banar ads here

অনশনরত মাদ্রাসা শিক্ষকদের সঙ্গে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বৈঠক দুপুরে

রবিবার, ১৪/০১/২০১৮ @ ১২:৩৭ অপরাহ্ণ

Spread the love

আরটিএমনিউজ২৪ডটকম: জাতীয়করণের দাবিতে আমরণ অনশনরত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকদের সঙ্গে আজ রোববার (১৪ জানুয়ারি) বৈঠকে বসছেন মাদ্রাসা ও কারিগরি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদও উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

সকালে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা শিক্ষক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। দুপুরে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরে যাবেন।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেসুর রহমান জানান, মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। বৈঠকটি ইতিবাচক হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন মোখলেছুর রহমান।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির ব্যানারে গত ১ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন করে আসছেন ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা। পরে ৯ জানুয়ারি থেকে লাগাতার অমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

আজ রোবার (১৪ই জানুয়ারি) ৬ষ্ঠ দিনে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকদের উপস্থিতি আরও বেড়েছে। গতকাল সন্ধ্যা অব্দি নতুন করে আরও ১৮ জন শিক্ষক অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ১৪৫জন অসুস্থ হলেন। কেউ কেউ স্যালাইন নিয়েই অনশন করছেন। অসুস্থদের অধিকাংশই অতিরিক্ত শীতে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত।

জানা যায়, মাদরাসা বোর্ডের নিবন্ধন পাওয়া ১০ হাজারের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা আছে। এতে শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। মাত্র এক হাজার ৫১৯টি ইবতেদায়ি মাদরাসার প্রধান শিক্ষক দুই হাজার ৫০০ টাকা ও সহকারী শিক্ষকরা দুই হাজার ৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন।

শিক্ষকরা জানান, কন কনে শীতে টানা আট দিন অবস্থান ধর্মঘটের পর গত মঙ্গলবার (৯ই জানুয়ারি) থেকে শুরু হওয়া আমরণ অনশনে শনিবার (১৩ই জানুয়ারি) সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৪৫ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরমধ্যে অধিকাংশ শিক্ষক অতিরিক্ত ঠান্ডায় নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি আছেন ১৮ জন।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি আলহাজ কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী বলেন, দীর্ঘদিন বিনা বেতনে চাকরি করতে করতে আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। জাতীয়করণ ছাড়া আমাদের আর ভিন্ন কোনো পথ খোলা নেই। সরকার প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ করেছে। আমরাও তো প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম অংশ। তাহলে আমাদের কেন বাকি রাখা হবে? আমাদের বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রীকে বিষয়টি ঠিকমতো বোঝালে তিনি নিরাশ করবেন না। তাই আমরা তাঁর দিকেই তাকিয়ে আছি।

ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির দপ্তর সম্পাদক মো. ইনতাজ বিন হালিম জানান, এ তীব্র শীতে খোলা আকাশের নিচে বসে থাকতে হচ্ছে। কিন্তু আমাদের এ দুঃখ-কষ্ট দেখার কেউ নেই। দ্রুত আমাদের দাবি মেনে নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনরোধ জানাচ্ছি।