, রোববার, ২০ জানুয়ারী ২০১৯

admin

বেগম জিয়ার নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে বিতর্ক

প্রকাশ: ২০১৮-১০-৩০ ২৩:২৫:৪১ || আপডেট: ২০১৮-১০-৩০ ২৩:২৫:৪১

Spread the love

বেগম জিয়ার নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে বিতর্ক
ফাইল ছবি, বেগম খালেদা জিয়ার।
খালেদা
বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান বিরোধী দল বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে
শুরু হয়েছে বিতর্ক। খালেদা জিয়ার সাজা বাড়ানোয় বিষয়টি নতুনভাবে আলোচনায় এসেছে।

হাইকোর্ট থেকে দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়ার ফলে তিনি আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কি না তা নিয়ে একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা ।

নির্বাচনী আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি ‘নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধে’ দোষী সাব্যস্ত হয়ে দুই বছরের বেশি মেয়াদে সাজাপ্রাপ্ত হন, তাহলে তিনি নির্বাচনে অংশ নেয়ার যোগ্যতা হারাবেন।কিন্তু দণ্ডিত ব্যক্তি যদি রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করেন আর সেই আপিল বিচারাধীন থাকে তাহলে অনেক সময় নির্বাচনে দাঁড়াতে পারেন।

মঙ্গলবার হাইকোর্ট খালেদা জিয়ার সাজা দ্বিগুণ করার পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, এর ফলে খালেদা জিয়া আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। দণ্ডপ্রাপ্ত কোনো ব্যক্তি আমাদের দেশের প্রচলিত আইনের বিধানমতে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না, যে পর্যন্ত এই দণ্ড পরিবর্তন না হয় এবং তিনি খালাস প্রাপ্ত না হন।

তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা অ্যাটর্নি জেনারেলের এ বক্তব্যকে ‘পুরোপুরি সঠিক নয়’ বলে মন্তব্য করেছেন।খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলছেন, সাধারণত হাইকোর্টের রায়ের পর ৩০ দিনের মধ্যে আপিল করার বিধান রয়েছে। আপিল বিভাগ যেহেতু এখনো বিষয়টির চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করেনি, সে কারণে খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা এখনো আছে।-সূত্র: বিবিসি বাংলা ।

উল্লেখ্য,মঙ্গলবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা ৫ বছর বাড়িয়ে ১০ বছর করেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। একইসঙ্গে খালাস চেয়ে খালেদা জিয়াসহ তিন আসামির আপিল খারিজ করেছেন আদালত।

চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে খালেদা জিয়াসহ ছয় আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ভূমিধস বিজয়ের পর আজ শনিবার বিজয় সমাবেশ করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। বেলা
দলের উচ্চপর্যায়ের সূত্র জানায়, বিজয় সমাবেশ হলেও এতে দলের মন্ত্রী, সাংসদ, নেতাসহ সবার প্রতি দুর্নীতিবিরোধী
কয়েক দিন আগেও তাকে ঘিরে নেতাকর্মীদের জটলা লেগেই থাকতো। ঢাকা থেকে সিলেট ফিরলে ভিড় লেগে
লজ্জা-শরম থাকলে নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পর মির্জা ফখরুলের পদত্যাগ করা উচিত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন
বাংলাদেশে একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনরে জন্য দলীয় মনোনয়ন বিক্রি করা শুরু করেছে

Logo-orginal

আর টি এম মিডিয়া কর্তৃক প্রকাশিত