, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮

EDITOR

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী ( স.)

প্রকাশ: ২০১৮-১১-২১ ০৮:১০:৩৬ || আপডেট: ২০১৮-১১-২১ ০৮:১০:৩৬

Spread the love

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী ( স.)

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (স.)। বিশ্বমানবতার মুক্তির দিশারী রাহমাতুল্লিল আলামিন সাইয়েদুল মুরসালিন খাতামুন্নাবিয়ীন তাজেদারে মদীনা জগতকুল শিরোমণি সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা আহমদ মুজতাবা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলা আলিহী ওয়া সাল্লামের জন্ম ও ওফাত দিবস। আজ থেকে প্রায় ১৫শ’ বছর পূর্বে ৫৭০ খৃস্টাব্দে এ দিনে সুবহে সাদেকের সময় মক্কা নগরীর সম্ভ্রান্ত কুরাইশ বংশে মা আমেনার কোল আলো করে প্রিয় নবী (স.) আসেন এই ধরায়। জন্মের পূর্বেই পিতৃহারা হন এবং জন্মের অল্পকাল পরই বঞ্চিত হন মাতৃস্নেহ থেকে। অনেক দুঃখ-কষ্ট আর অসীম প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে চাচা আবু তালিবের আশ্রয়ে বড় হয়ে ওঠেন হযরত মুহাম্মদ (দ)। চল্লিশ বছর বয়সে উপনীত হওয়ার পর তিনি মহান রাব্বুল আলামীনের পক্ষ থেকে নবুওয়তের মহান দায়িত্ব লাভ করেন। অসভ্য বর্বর ও পথহারা মানব জাতিকে সত্যের সংবাদ দিতে তিনি তাদের কাছে তুলে ধরেন মহান রাব্বুল আলামীনের তাওহীদের বাণী।
কেবল তাঁর অনুসারীদেরই নন, জাতি-ধর্ম বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে সকল মানুষের আদর্শ ও পথ প্রদর্শক প্রিয় নবী (স.)। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক বলেছেন, আপনাকে আমি জগৎসমূহের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি। মহানবী (স.) বিশ্বমানবের জন্য আল্লাহ নির্ধারিত সেরা পথ প্রদর্শক, মহান শিক্ষক ও অনুপম আদর্শ। মানবেতিহাসের এক যুগসন্ধিকালে, অন্ধকারতম সময়ে তিনি মহান আল্লাহর বাণী নিয়ে অবতীর্ণ হন। তার উদাত্ত আহ্বান, নিষ্ঠাপূর্ণ কর্মসাধনা, উচ্চতম নীতি আদর্শ ও অমলিন পবিত্র-মাধুর্যের মাধ্যমে তিনি অতি অল্প দিনে এক আলোকোজ্জ্বল ও সর্বোন্নত জীবনব্যবস্থা বাস্তবায়ন করেন। অজ্ঞানতা, কুসংস্কার এবং অনাচার, পাপাচার ও বিশ্বাসহীনতার কলুষ দূরীভূত করে শান্তি, সভ্যতা, নিরাপত্তা ও মানবিক মর্যাদার এক নতুন পথ রচনা করেন। বিশ্বাস, প্রজ্ঞা ও মানবিক গুণাবলী সমৃদ্ধ নয়া সভ্যতার স্থপতি হিসেবে তিনি কেবল আরবীয়দের নয়, গোটা বিশ্বের মানুষের মুক্তির দিশা দান করেন। মহান আল্লাহর একমাত্র মনোনীত ধর্ম ইসলামের বাণী বাহক হিসেবে তিনি মানুষের ধর্মীয় জীবনেই প্রভাব বিস্তার ও সুনির্দিষ্ট করেননি, মানব জীবনের এমন কোনো দিক বিভাগ নেই যেখানে তাঁর অনিবার্য প্রভাব প্রতিফলিত হয়নি। তিনি একাধারে একটি ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা, একটি জাতির নির্মাতা এবং একটি অতুল্য সভ্যতার স্রষ্টা। তাই তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ নবী, রাহবারও তাকে বলা হয় সাইয়েদুল মুরসালিন ও খাতামুন্নাবিয়ীন।
রাসুলে করীম (দ) ইসলামের দাওয়াত দেয়া শুরু করলে অসভ্য-বর্বর আরব জাতি তাঁর (স.) দাওয়াত গ্রহণ না করে নির্যাতন শুরু করে। বিভিন্নমুখী চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করতে থাকে একের পর এক। আল্লাহর সাহায্যের ওপর ভরসা করে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য জীবন বাজি রেখে সংগ্রাম চালিয়ে যান তিনি। ধীরে ধীরে সত্যান্বেষী মানুষ তাঁর সাথী হতে থাকেন। অন্যদিকে কাফেরদের ষড়যন্ত্রও প্রবল আকার ধারণ করে। এমনকি একপর্যায়ে তারা রাসুল (স.) কে হত্যার পরিকল্পনাও গ্রহণ করে। রাসুল (স.) আল্লাহর নির্দেশে জন্মভূমি ত্যাগ করে মদীনায় হিজরত করেন। মদীনায় তিনি ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে আল্লাহর আইন বাস্তবায়ন করেন এবং মদীনা সনদ নামে একটি লিখিত সংবিধান প্রণয়ন করেন। মদীনা সনদ বিশ্বের প্রথম লিখিত সংবিধান হিসাবে খ্যাত। এ সংবিধানে ইহুদী, খৃষ্টান, মুসলমানসহ সকলের অধিকার স্বীকৃত হয় সমান্তরালে।
২৩ বছর শ্রম সাধনায় রাসুলে পাক (স.) দ্বীন প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে বিজয় অর্জন করেন। মক্কা বিজয়ের মাধ্যমে তা পূর্ণতা লাভ করে। বিদায় হজের ভাষণে তিনি আল্লাহর বাণী শুনিয়েছেন মানবজাতিকে ‘আজ থেকে তোমাদের জন্য তোমাদের দ্বীন তথা জীবনব্যবস্থাকে পরিপূর্ণ করে দেয়া হলো। তোমাদের জন্য দ্বীন তথা জীবনব্যবস্থা হিসাবে একমাত্র ইসলামকে মনোনীত করা হয়েছে। হযরত মুহাম্মদ (স.) ইতিহাসের অতুলনীয় ব্যক্তিত্ব। অন্য ধর্মাবলম্বীরাও তাঁকে মানবজাতির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সংস্কারক ব্যক্তিত্ব হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। হযরত মুহাম্মদ (স.) এর ওপর নাযিল হয় ঐশী গ্রন্থ আল কোরআন। এখনো পর্যন্ত সারাবিশ্বে নির্ভুল, বহুল পঠিত হিসেবে বিবেচিত একমাত্র গ্রন্থ আল কোরআন।
প্রতি বছর ১২ রবিউল আউয়ালকে অতীব গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসাবে পালন করে সারা মুসলিম বিশ্ব। এ উপলক্ষে জমায়েত হয়ে নবীজীর জীবনী আলোচনা করে এবং কাসীদা পড়ে থাকে। মিষ্টি-খাবার প্রভৃতি তৈরি করে বিতরণ করে। রাসুল প্রেমিকরা ভক্তিভরে দরুদ পাঠে মশগুল থাকেন। বের করা হয় বর্ণাঢ্য র‌্যালি বা জশনে জুলুস। আজ সরকারি ছুটির দিন। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীসহ মুসলিম উম্মাহকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, মহানবী (স.)-এর জীবনাদর্শ আমাদের সকলের জীবনকে আলোকিত করুক, আমাদের চলার পথের পাথেয় হোক, মহান আল্লাহর কাছে এ প্রার্থনা করি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহানবী (স.)-এর সুমহান আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই প্রতিটি জনগোষ্ঠীর অফুরন্ত কল্যাণ, সফলতা ও শান্তি নিহিত রয়েছে। আজকের দ্বন্দ্ব-সংঘাতময় বিশ্বে প্রিয়নবী (স.)-এর অনুপম শিক্ষার অনুসরণের মাধ্যমেই বিশ্বের শান্তি, ন্যায় এবং কল্যাণ নিশ্চিত হতে পারে।
বেতাগী দরবারে জশনে জুলুস কাল : রাঙ্গুনিয়াস্থ বেতাগী আনজুমানে রহমানিয়ার উদ্যোগে ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) উদযাপনে জশনে জুলুস আগামীকাল ২২ নভেম্বর (১৩ রবিউল আউয়াল) বৃহস্পতিবার সকাল দশটায় দরবারে বেতাগী আস্তানা শরিফ থেকে রওনা হবে। জুলুসটি বিভিন্ন এলাকা ঘুরে রাউজান কদলপুরস্থ সুলতানুল আউলিয়া হযরত আশরফ শাহ (রহ) এর মাজার প্রাঙ্গণে মিলাদ মাহফিল ও জমায়েত অনুষ্ঠিত হবে। জশনে জুলুসে নেতৃত্ব দেবেন এবং মাহফিলে সভাপতিত্ব করবেন দরবারে বেতাগী আস্তানা শরিফের সাজ্জাদানশিন পীরে তরিকত আল্লামা মুহাম্মদ গোলামুর রহমান আশরফ শাহ (মজিআ)। মাহফিলে বক্তব্য রাখবেন পীরে তরিকত আল্লামা সৈয়দ আমিনুল হক আলকাদেরী, আল্লামা মুফতি ইব্রাহিম আলকাদেরী, আল্লামা হাফেজ রুহুল আমিন, শাহজাদা মাওলানা জিয়াউর রহমান আহমদ উল্লাহ, অধ্যক্ষ আল্লামা ইলিয়াছ নূরী, অধ্যক্ষ আল্লামা তৈয়্যব আলী, উপাধ্যক্ষ আল্লামা মুছা নঈমী।
কদম মোবারক মহল্লা সমিতি
ঝাউতলা, জামাল খান, কদম মোবারক, রহমতগঞ্জ, আন্দরকিল্লা মহল্লা সমিতির উদ্যোগে কদম মোবারক শাহী জামে মসজিদে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) মাহফিল আজ বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে গত রবিবার বাদ এশা কদম মোবারক মসজিদ সংলগ্ন মহল্লা সমিতির কার্যালয়ে সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির কোষাধ্যক্ষ মো. ইকবাল হাসানের সঞ্চালনায় ও সভাপতি এ.এম.এম. সাহাবুদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শামসুল আলম। সভায় তারা আসন্ন ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। এর আগে কদম মোবারক মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মো. ইকরাম হোসাইনের কুরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় মুনাজাত পরিচালনা করেন মসজিদের খতীব, অধ্যক্ষ মুহাম্মদ বদিউল আলম রিজভি।
সভায় গৃহীত চার দিনব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ২১ নভেম্বর বুধবার বাদ এশা কদম মোবারক মসজিদে ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) উপলক্ষে মিলাদ মাহফিল, ২৯ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে ওরশ মোবারকের তবারুক বিতরণ এবং ৩০ নভেম্বর শুক্রবার বাদ জুমা মেজবান। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন মহল্লা সমিতির উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন।

ছবি, নয়া দিগন্ত । বাংলাদেশে সেকুলারিজমের অনুবাদ করা হয় ‘ধর্মনিরপেতাবাদ’। কিন্তু
ছবি: সংগৃহীত সমাজে প্রচলিত একটি ভুল উক্তি হলো- ‘স্বামীর পায়ের নিচে
চট্টগ্রাম: ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আনজুমান-এ-রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ৪৭তম জশনে জুলুস। লাখো মানুষের
মধ্য তুরস্কে কিরশেহির শহরের ‘হামিদিয়া জামে মসজিদে’ প্রবেশ করলে আপনি হতভম্ব হয়ে পড়তে পারেন যে,

Logo-orginal

আর টি এম মিডিয়া কর্তৃক প্রকাশিত