, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

admin

‘খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার নামে টানাহেঁচড়া করে নির্যাতন করা হচ্ছেঃ রিজভী

প্রকাশ: ২০১৯-০২-১০ ১৭:৩৭:৩২ || আপডেট: ২০১৯-০২-১০ ১৭:৩৭:৩২

Spread the love

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, ‘খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার নামে টানাহেঁচড়া করে নির্যাতন করা হচ্ছে। চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকলেও তিলে তিলে শেষ করে দেওয়ার জিঘাংসা চরিতার্থ করে চলেছে সরকার।’

আজ (রোববার) রাজধানীর নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন। এসময় তিনি আকুতি জানিয়ে রিজভী বলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলতে চাই-দুই কোটি টাকার সাজানো মিথ্যা মামলায়-যার সাথে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্টতা নেই, তাকে জেলখানা নামের ইঁদুর-তেলাপোকা ও পোকা মাকড়ে উপদ্রুত স্যাঁতসেতে অন্ধকার ঘরে আর আটকে রাখবেন না। ওই দুই কোটি টাকাতো সরকারের ছিল না। ছিল ব্যক্তিগত ট্রাস্টের। সেই দুই কোটি টাকা ব্যাংকে জমা আছে। তা এখন তিনগুন বেড়েছে। বেগম জিয়ার সংশ্লিষ্টতাহীন দুই কোটি টাকার মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়ার নজীর নেই, যেখানে ন্যূনতম আইনের শাসন আছে।”

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে রিজভী বলেন, “আপনি অনুগ্রহ করে ফেরাউন-নমরূদ-হিটলার অথবা কল্পরাজ্যের হিরকের রাজাকে টেক্কা দেয়ার প্রতিযোগিতা করবেন না। জালিম এ সমস্ত শাসকরা আজও মানুষের মধ্যে ধিকৃত। দুই কোটি টাকার মিথ্যা মামলায় এক বছর তো কারারুদ্ধ করে রাখা অন্যায়, অবিচার ও জুলুম। মিথ্যা দণ্ড দিয়ে তাকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার সাধ পূর্ণ করলেন – এবার মুক্তি দিন।”

রিজভী সরকারের উদ্দেশে আরো বলেন, “হলমার্ক, সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাটের বিচার না করে দুই কোটি টাকার তথাকথিত প্রমাণহীন ও সংশ্লিষ্টতাহীন দুর্নীতির বিচারে ১০ বছর সাজা দেওয়া হলো। রেন্টাল-কুইক রেন্টাল বিদ্যুতের দুর্নীতির অভিযোগ তুলে যাতে কেউ মামলা করতে না পারেন, সে জন্য জাতীয় সংসদে ইনডেমনিটি বিল পাস করা হয়েছে। দেশের উন্নয়নের নামে মেগা মেগা প্রকল্প গ্রহণ করে সেগুলো বাস্তবায়নে সময়ক্ষেপণ এবং দফায় দফায় ব্যয় বৃদ্ধি কি দুর্নীতি নয়? খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডে যে মন্ত্রীরা উৎফুল্ল, তাঁরা আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখেন কখনো? যারা লাখো কোটি টাকা পাচার করেছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, উল্টো তারাই জাতির দণ্ডমুণ্ডের কর্তা সেজেছেন।”

তিনি আরো বলেন, “খালেদা জিয়ার বয়স ৭৩ বছর। প্রচণ্ড ঝুঁকিপূর্ণ অসুস্থ শরীর। একা চলতে পারেন না। আদালতে বা হাসপাতালে আনতে গেলে হুইল চেয়ারই ভরসা। তারপরও টেনেহিঁচড়ে জবরদস্তি করে আনা হচ্ছে শেখ হাসিনার নির্দেশিত ‘ক্যাঙ্গারু কোর্টে’। গত বৃহস্পতিবার তাকে আদালত নামের কারাগারের আলো-বাতাসহীন ছোট্ট একটি রুমে এনে এক ঘণ্টা বসিয়ে রাখা হয়। তার অসুস্থতা দিনে দিনে বাড়লেও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। পুরোনো রোগগুলো বেড়ে গেছে। চোখেও প্রচণ্ড ব্যথা, পা ফুলে গেছে। নির্যাতন সহ্য করতে গিয়ে তার পূর্বের অসুস্থতা এখন আরও গুরুতর রূপ ধারণ করেছে। তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালের সুবিধা ও ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের দ্বারা নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা থেকেও বঞ্চিত করেছে শেখ হাসিনা। আইনজীবীরা বলছেন, কারামুক্ত হতে চারটি মামলায় জামিন পেতে হবে। এই অবৈধ সরকারের হাত যেহেতু আইনের হাতের চেয়ে লম্বা, তাই সব নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রীর ওপর।”

সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহদপ্তর সম্পাদক মো. মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।# উৎসঃ পার্সটুডে ।

ওয়াসার প্রকৌশলী ও কে এম সহিদ উদ্দিন জানান, আজকে শবরত খাব না, লাইন ঠিক করে
ঢাকা: বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়াসহ এই মুহূর্তে দলটির অন্তত ১৫ জন কেন্দ্রীয় নেতা কারাগারে রয়েছেন।
চট্টগ্রামঃ লক্ষ্মীপুরে স্ত্রী’র স্বীকৃতি চাইতে এসে গায়ে কেরোসিন ঢেলে শাহিন আক্তারকে হত্যার ঘটনায় মামলা করেছেন
চট্টগ্রামঃ ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিন সোহেলকে পিটিয়ে হত্যা মামলার এক আসামি পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান গুরুত্বপূর্ণ। তাদের সুযোগ-সুবিধা ও কল্যাণ নিশ্চিত করা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo-orginal

আর টি এম মিডিয়া কর্তৃক প্রকাশিত