, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০

Avatar jamil Ahamed

এবার গৃহবধুকে গাছে বেঁধে রড দিয়ে পেটালো স্বামী ও দেবর

প্রকাশ: ২০১৯-০৬-২৮ ১১:৩৪:১৮ || আপডেট: ২০১৯-০৬-২৮ ১১:৩৪:১৮

Spread the love

জামালপুরের মাদারগঞ্জে যৌতুকের জন্য গৃহবধূ ইয়াছমিনকে (২৩) গাছে বেঁধে রড দিয়ে পিটিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী মাজেদ ফকির, শ্বশুর টগরু ফকির, দেবর (স্বামীর ভাই) মোহাম্মদ শাহজাহান ও শাহজাহানের স্ত্রী ছানোয়ারা বেগমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত বুধবার গভীর রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার ওই চার আসামিকে জামালপুর আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ।

জানা গেছে, জেলার মাদারগঞ্জ পৌরসভার বালিজুড়ী পশ্চিমপাড়া গ্রামের মাজেদ ফকিরের সাথে একই পৌরসভার চরবওলা গ্রামের কৃষক দুদু প্রামাণিকের মেয়ে ইয়াছমিনের বিয়ে হয় পাঁচ বছর আগে। তাদের সংসারে মেঘলা নামের চার বছরের এক কন্যা সন্তান রয়েছে।

এদিকে বিয়ের পর থেকেই তিন লাখ টাকা যৌতুকের জন্য স্ত্রী ইয়াছমিনকে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগসহ নির্যাতন করে আসছিলেন স্বামী মাজেদ ফকিরসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা।

গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে যৌতুকের টাকা নিয়ে স্বামী-স্ত্রী দু’জনের মধ্যে ঝগড়ার এক পর্যায়ে মাজেদ ফকির ও তার পরিবারের সদস্যরা ইয়াছমিনকে প্রথমে মারধর করে। এরপর বাড়ির পাশে গাছে বেঁধে রড দিয়ে বেধড়ক পেটায়। এতে ইয়াছমিন গুরুতর আহত হলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ওইদিনই মাদারগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে ওই গৃহবধূ ইয়াছমিন বাদী হয়ে মাদারগঞ্জ মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

ওই গৃহবধূর বাবা দুদু প্রামাণিক বলেন, আমার মেয়ের স্বামী ও তার বাড়ির লোকজনরা বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য চাপ দিতো এবং
মারপিট করতো।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা মাদারগঞ্জ মডেল থানার এসআই সুমন চক্রবর্তী বলেন, যৌতুকের জন্য অমানবিক নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ইয়াছমিনের অভিযোগ পেয়েই তার স্বামী, শ্বশুরসহ চারজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।সুত্রঃ নয়া দিগন্ত ।

Logo-orginal