, রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯

admin

১০ লাখ টাকার অভাবে মৃত্যুের দ্বারপ্রান্তে শিক্ষক ইমাম উদ্দীন

প্রকাশ: ২০১৯-০৬-২৯ ১১:৩৭:০০ || আপডেট: ২০১৯-০৬-২৯ ১১:৩৭:০০

Spread the love

ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন নোয়াখালীর ইসলামিয়া আলিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ইমাম উদ্দিন। কারণ মরণব্যাধি ক্যান্সার বাসা বেঁধেছে তার শরীরে। তাকে বাঁচাতে প্রয়োজন ১০ লাখ টাকা। তবে দরিদ্র এ শিক্ষকের পরিবারের পক্ষে এত টাকা খরচ করে চিকিৎসা করানো সম্ভব নয়। এরইমধ্যে তাকে বাঁচাতে সর্বস্ব হারিয়েছে পরিবার। তাকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীসহ নিজের সক্ষমতা অনুযায়ী সবাইকে এগিয়ে আসার অনুরোধ জানিয়েছে তার পরিবার। প্রতিবেদন সমকালের।

১৯৮৪ সালে নোয়াখালীর ইসলামিয়া আলিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন ইমাম উদ্দিন। শিক্ষকতা জীবনে সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর জীবন আলোকিত করলেও গলায় ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে আজ তার জীবনই অন্ধকারাচ্ছন্ন। ২০১৭ সালে অসুস্থ হওয়ার পর তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে পরীক্ষায় গলায় ক্যান্সার ধরা পড়ে। সে সময় তাকে কেমো ও রেডিও থেরাপি দেওয়া হয়। তবে ২০১৮ সালের শেষ দিকে আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। এখন চিকিৎসকরা তাকে বোন মেরু ট্রান্সপ্ল্যান্টের পরামর্শ দিয়েছেন। যার জন্য প্রয়োজন ১০ লাখ টাকা। বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ইমাম উদ্দিন। খেয়ে না খেয়ে তাকে বাঁচাতে 

চেষ্টা চালাচ্ছে পরিবার। তবে এখন আর তার চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে পারছেন না তারা। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সমাজের বিত্তশালী মানুষ, তার দেশে-বিদেশে থাকা শিক্ষার্থীসহ নিজের সক্ষমতা অনুযায়ী সবার কাছে সাহায্য কামনা করেছেন তিনি। সাহায্য পাঠানোর জন্য যোগাযোগ : ০১৭১৪৬৫১১৫০ (বিকাশ); ব্যাংক অ্যাকাউন্ট- ইমাম উদ্দিন, ২১৮৯, উত্তরা ব্যাংক, সোনাপুর শাখা, নোয়াখালী।

মোহাম্মদ ইমাদ উদ্দীনঃ ধর্ষণ একটি ভয়ংকর সামাজিক ব্যাধি। আজকাল পত্রিকার পাতায়   কিংবা সোস্যাইল মিডিয়াতে
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করায় বাংলাদেশ
বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ঢাকার সিএমএম আদালতে ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ মামলা দায়ের
ইহরামের কাপড় গায়ে দিয়ে সিলেটের হজরত শাহজালাল (রাহ.) এর বার্ষিক উরুস অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া নিয়ে
গত মঙ্গলবার বিকালে ওই পুলিশ অফিসার মাজহারুল হক পৌর শহরের নিউটাউন এলাকা থেকে মো. জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo-orginal