, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯

Maftun

ভারী বর্ষনে বাঁশখালীর উপকূলীয় অঞ্চল প্লাবিত

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১২ ০০:৪২:৩৯ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১২ ০০:৪২:৩৯

সাখাওয়াত হোসাইন ফরহাদ,  বাঁশখালী প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় টানা বৃষ্টিতে প্লাবিত হয়েছে উপকূলীয় অঞ্চল।টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ের ঢলে তলিয়ে গেছে উপকূলীয় এলাকার রাস্তাঘাট,ঘরবাড়ি ও বিভিন্ন ফসলি জমি,বিপর্যস্ত হয়ে গেছে মানুষের জীবন।

উপজেলার বাহারছড়া,খানখানাবাদ,সরল,গন্ডামারা,ছনুয়া,পুইছড়ি,চাম্বল সহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ইতোমধ্যে পানিতে তলিয়ে গেছে,রাস্তাঘাট,ঘরবাড়ি ডুবে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষের।নষ্ট হয়েছে বিভিন্ন সবজি ক্ষেত সহ নানা ধরণের ফসলি জমি।কৃষকের স্বপ্নের ফসল চাষ,মাছের ঘের সবকিছু পানিতে তলিয়ে গেছে।গ্রামীণ সড়কগুলো আর দেখা যাচ্ছেনা,চারিদিকে পানি আর পানি।যার কারণে যাতায়াত সমস্যায় যেমন ভুগছে তেমনিভাবে রাস্তাঘাট ডুবে থাকার ফলে আটকা পড়েছে হাজারো মানুষ।এমনিতেই প্রায় গ্রামীণ সড়ক নষ্ট,তারমধ্যে পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে আরো বেশি নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,বাহারছড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় সড়কগুলো পানির নিছে।অনেকগুলো সড়ক ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।গুনাগরী খাসমহাল হতে মোশাররফ আলী মিয়ার বাজার যাওয়ার পথে আগে থেকেই রাস্তার এক অংশ ভাঙা ছিল তা এখন পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল বিপদজনক হয়ে পড়েছে।এছাড়াও ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় কালভার্টের অসমাপ্ত কাজ থেকে যাওয়ায় ভয়াবহ পরিস্থিতিরও শিকার হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষের।অনেকের ঘরবাড়ি ডুবে গেছে,অনেকের মাছের ঘের,বর্ষাকালীন সবজি ক্ষেত ডুবে গেছে।গবাদিপশু নিয়েও বিপাকে আছে গ্রামীন মানুষগুলো।এছাড়া অধিকাংশ মানুষ বন্যার আশংকায় দিনযাপন করছে।

খানখানাবাদ ইউনিয়নের অধিকাংশ ঘরই পানিতে ভরপুর,রাস্তাঘাট ডুবে আছে,অনেকের মাছের প্রজেক্ট ভেসে গেছে পানিতে,সবজি ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে।স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি পানি।সবকিছু মিলেই বিপর্যস্ত এক জীবন অতিবাহিত করছেন সেখানকার মানুষগুলো। রশিদ নামের একজন জানান,তার ছোট্ট একটা ঘরে বউ বাচ্চা নিয়ে থাকে,এখন সেটা ডুবে গিয়ে একদম পথহারা!!শুধু একজন না,এমন হাজারো মানুষ আছে যাদের থাকার স্থানটাও ডুবে গেছে,শেষ সম্বলটুকু পানিতে তলিয়ে গেছে।

বাহারছড়া,খানখানাবাদ ইউনিয়নের মতো প্রায় প্রত্যেকটা ইউনিয়নেই গ্রামীণ সড়কগুলো পানির নিচে তলিয়ে গেছে।বিশেষ করে উপকূলীয় এলাকায় পানিবন্দি অবস্থায় দিন পার করছে হাজার হাজার মানুষ।অনেকের ঘরবাড়ি ডুবে গেছে,চাষ করা সবজি ক্ষেত,লবণ চাষ,মাছের প্রজেক্ট সবকিছুই তলিয়ে গেছে পানিতে।গ্রামের অধিকাংশ মানুষ কৃষিকাজ করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করেন।সেই কৃষিক্ষেত টানা বর্ষণে ভেসে যাওয়ায় বিশাল ক্ষতির মধ্যে পতিত হওয়ার আশংকা।

এদিকে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে পল্লী বিদ্যুৎ এর অবস্থা আরো বেশি খারাপ।জলবদ্ধতার কারণে দিনের বেশিরভাগ সময় বিদ্যুৎ থাকেনা,যার কারণে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ আরো বেশি বাড়ছে,স্থীর হয়ে পড়েছে জীবন।

এসব বিষয়ে বাহারছড়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড ইউপি মেম্বার ওমর হায়াত জানান,’এলাকায় অধিকাংশ পানিতে ডুবে গেছে,অনেক মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে থেকে সহযোগিতা করছি।

রাকিব উদ্দিন গতকাল শুক্রবার, ৮ নভেম্বর নগরীর শিল্পকলা একাডেমীতে প্রয়াত নাট্যজন 'ফারহানা পারভীন প্রীতি' কে
রাকিব উদ্দিন কেডিএস এক্সোসরিজ লিমিটেডের ২৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা বৃহস্পতিবার, ০৭ নভেম্বর সকালে নগরীর বোট
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলে’র গতিবেগ কম থাকায় সেটি বাংলাদেশ পর্যন্ত না এসে ভারতের উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে
বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ উপকূলের দিকে আরও এগিয়েছে। এটি আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজনা ইসালামের অপসারণের দাবিতে চলমান আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলার পর অনির্দিষ্টকালের

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo-orginal