, সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

Maftun

শুধুমাত্র একটি সিদ্ধান্তেই পাল্টে যাবে বাঁশখালী সহ পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রাম!

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-০৩ ১০:৪৭:৫২ || আপডেট: ২০১৯-০৭-০৩ ১০:৪৭:৫২

মোহাম্মদ জালাল হুসাইন চৌধুরী,  বিশেষ প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম শহরের অদূরে প্রায় ৩৭ কি.মি দক্ষিণে নান্দনিক পর্যটন স্পট: বাঁশখালী’র চা-বাগান – ইকোপার্ক – সমুদ্র সৈকত।

সম্ভাবনাময়ী এই তিনটি স্পট আধুনিকায়ন ও যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতকরণ করতে পারলেই দক্ষিণ  চট্টগ্রাম  পুরো বাংলাদেশের অন্যতম সাঁড়া জাগানো আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হবে বাঁশখালী । সাথে সাথে পিছিয়ে পড়া ঐ অঞ্চলও একটি সমৃদ্ধ ইকোনোমিক জোনে পরিণত হবে!

বাঁশখালী’র প্রবেশ দ্বারেই রয়েছে শঙ্ক নদীর উপর বিশাল ব্রীজ ৷ প্রথমেই ১ নং পুকুরিয়া ইউনিয়নে পাহাড় গেঁষে প্রায় ৩৫ হাজার একর জমিতে সুবিশাল ‘বেলগাঁও চা-বাগান’ ৷ এখানে প্রায় ৭ শতাধিক শ্রমিক কাজ করছে ৷ এ বাগানের চারিদিকে প্রোটেকশন ব্যবস্থা হিসেবে কোনো বেড়াও নেই ৷ শ্রমিকরা সবসময় বন্যপ্রাণীর আক্রমণের ভয়ে থাকে ৷ তাই শ্রমিকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুরাহা করা প্রয়োজন ৷ পুকুরিয়া থেকে ৩ কি.মি পথ অতিক্রম করে ভেতরে চা বাগানে যেতে হয় ৷ বিভিন্ন সময়ে তথা ১৯১২,১৯৪৭,১৯৬৫,১৯৮৫,১৯৯২,১৯০৩ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত বিভিন্নভাবে সংস্কার করলেও যাতায়াত ব্যবস্থার উল্লেখযোগ্য সংস্কার হয়নি ৷ এ বাগান থেকে হয় ‘ক্লোন চা পাতা’ যা খুবই উন্নত মানের৷ এ জন্যে বাজারে এর চাহিদা খুব বেশি ৷ সরকার ১৫ % করে প্রতি বছরে এ বাগান থেকে প্রচুর পরিমাণে রাজস্ব আদায় করছে ৷

এরপর ‘বাঁশখালী ইকোপার্ক’। পৌরসভা থেকে প্রায় ৫ কি.মি দূরে শীলকূপ ইউনিয়নে পাহাড়ের উঁচু- নিচু পাহাডের মাঝে রয়েছে ‘বামেরছড়া’ ও ‘ডানেরছড়া’ লেক তা হলো ইকোপার্ক ৷ এ দু’টো লেকের সংযোগ স্থলে রয়েছে  একটি ঝুলন্ত ব্রীজ ৷ এতে বন্য প্রাণী ও প্রাকৃতিক অনেকগুলি চোখ ধাঁধাঁনো দৃশ্য বিদ্যমান ৷ এখন এটির যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেক ভালো ৷ তবে পূর্বের সৌন্দর্য সংরক্ষণের ব্যপারে কিছুটা প্রশ্ন রয়েছে ৷ অপার সম্ভাবনাময়ী এ প্রকল্পটি সরকার অতীব গুরুত্ব সহকারে নিলে পর্যটকরা আরো বেশি আকর্ষিত ও উৎসাহিত হবে ৷

বাঁশখালীর পূর্ব পাশে পাহাড় আৱ পশ্চিম পাশে বিশাল এলাকাজুড়ে সমুদ্রসৈকত ৷ এটি ৫ টি ইউনিয়নের একটি বিস্তীর্ণ  এলাকা ৷ বাঁশখালীর সর্ব দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকে সাগরকূল বেয়ে চনুয়া,গন্ডামারা,সরল, বাহারছড়া ও খানখানাবাদ ইউনিয়নে শেষ হয় ৷ বিশাল চর তাতে প্যারাবন ও ঝাউ-বাগান মিলিয়ে একটি অসাধারণ সম্ভাবনাময়ী পর্যটন স্পট গড়ে উঠেছে ৷ প্রতিদিন অনেক পর্যটকদের ভীড় হচ্ছে ৷ বিশেষ করে দিন দিন বাহারছড়া ও খানখানাবাদের  এলাকাটি পর্যটকদের জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছেছে ৷ সরকার সুদৃষ্টি দিলে এর পাশে বেড়িবাঁধকে কেন্দ্র করে অর্থনৈতিক জোন গড়ার পাশাপাশি মেৱিনড্রাইভ রোড নির্মাণ করলে শুধু বাঁশখালী নয় পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রামের চেহেরা পাল্টে যাবে ৷ সাগরেৱ লোনা জলের পাদদেশ থেকে দেখা যায় কুতুবদিয়া চ্যানেল ৷ এই পাশটা উন্নত হলে আশা করি এর সুফল কুতুবদিয়াবাসিও পাবে ৷

সাগরকে কেন্দ্র করে বিশাল বিশাল ঘোনা আর সাগরের তাজা মাছ আর শুকানো শুঁটকি মাছ ত আছেই ৷ তা ছাড়া সকল ধরণেৱ শাক, সবজি ও প্রাকৃতিক ফলাদি বাগানের সুযোগ কাজে লাগিয়ে এখানকার কৃষকেরা প্রতিনিয়ত এ এলাকাৱ চাহিদা মিটিয়ে বাইরেও বাজারজাত করে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য,  গুরুত্বপূর্ণ এ সম্ভাবনাময়ী বিষয় সমূহ সংশ্লিষ্ট মহল আমলে নিয়ে সরকারের কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় করে যথাযথ কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। যা বাস্তবায়নেই পাল্টে দিতে পারে এ অঞ্চলের পুরো দৃশ্যপট ৷ এটিই হবে দক্ষিণ চট্টগ্রামের জন্যে একটি অন্যতম যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত ৷

বিনোদন প্রতিবেদক চট্টগ্রাম গ্রুপ থিয়েটার ফোরাম-এর উদ্যোগে আগামী ১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হচ্ছে
  রাকিব উদ্দীন বন্দরনগরী চট্টগ্রামে ডাঃ দিলরুবা সুলতানা সুমাইয়া'র নেতৃত্বে নগরীর শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে চলছে
রাকিব উদ্দিন প্রতি বছরের মতো এবারও প্রবাসে নিজ পেশায় অবদান রাখার স্বীকৃতি সরুপ নিউইয়র্কে জমকালো
রাকিব উদ্দিন গতকাল শুক্রবার, ৮ নভেম্বর নগরীর শিল্পকলা একাডেমীতে প্রয়াত নাট্যজন 'ফারহানা পারভীন প্রীতি' কে
রাকিব উদ্দিন কেডিএস এক্সোসরিজ লিমিটেডের ২৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা বৃহস্পতিবার, ০৭ নভেম্বর সকালে নগরীর বোট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo-orginal