, রোববার, ৯ আগস্ট ২০২০

Avatar admin

“আপনার এটিএম কার্ড বাতিল করা হয়েছে” এমন এসএমএসে হাতিয়ে নিল ১০০০ কুয়েতি দিনার

প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২৪ ০৯:২৭:২২ || আপডেট: ২০১৯-০৯-২৪ ০৯:২৭:২২

Spread the love

কুয়েত সিটিঃ‘প্রিয় গ্রাহক… আপনার এটিএম কার্ড বাতিল হয়ে গেছে; আপনার ডাটা আপডেট করতে দয়া করে এই নাম্বারে কল করুন (…)।

প্রতি উত্তরে সব তথ্য জানিয়ে দিল গ্রাহক, ফলাফল- সব দিনার উধাও তার একাউন্ট থেকে।

ভুক্তভোগী মিশরীয় নাগরিক। ঘটনাটি ঘটেছে কুয়েতের খাদিসিয়া এরিয়ায় ।

আল-রাই দৈনিকের বরাত দিয়ে আরব টাইমসে সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে।

সুত্রে প্রকাশ, অজ্ঞাত এক মিশরীয় নাগরিক তার ফোনে একটি বার্তাটি পেয়েছিল যে,‘প্রিয় গ্রাহক… আপনার এটিএম কার্ড বাতিল হয়ে গেছে; আপনার ডাটা আপডেট করতে দয়া করে এই নাম্বারে কল করুন (…)।

এমন বার্তা পেয়ে সকল তথ্য শেয়ার করে মিশরীয় নাগরিক, কিছুক্ষণ পর একই সাথে ৩ টি এসএমস বা বার্তা আসে আবারো, এবার বলা হয়, প্রিয় গ্রাহক আপনি ১০০০ কুয়েতি দিনার আপনার হিসাব থেকে তুলেছেন।

মিশরীয় জানান, তিনি এমন বার্তার জবাব দিয়েছিলেন এবং যা যা তাকে বলা হয়েছিল তা করেছিলেন এবং কয়েক মিনিট পরে যে বার্তাটি পান, তা থেকে জানানো হয়, তিনটি কিস্তিতে তার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলা হয়েছে।

তিনি ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানতে পারেন যে তাঁর প্রাপ্ত বার্তাটি কোনও অচেনা ব্যক্তির, কোন ব্যাংক কর্মচারী তাকে এই বার্তা দেয়নি।

হতভাগা মিশরী নাগরিক তো হতবাক, বার্তা দুটি মিলিয়ে দেখে চোখ কপালে উঠে তার।

প্রথমটি আসে ভুয়া নাম্বার থেকে, দ্বিতীয়টি আসে সত্যিই ব্যাংক থেকে।

অবশেষে থানা ও ব্যাংকে অভিযোগ দায়ের করেন সে মিশরী।

মামলাটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ই-অপরাধ বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

প্রিয় বাংলাদেশী ভাইয়েরা” কোন কল বা এসএমএসে আপনার কোন প্রকার তথ্য শেয়ার করবেন না প্লিজ।

এবং তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে থাকা প্রায় এক হাজার দিনার হারাতে এটি যথেষ্ট ছিল।

লোকটি কাশানিয়াহ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। মিশরীয় মতে তিনি এই বার্তাকে জবাব দিয়েছিলেন এবং যা যা তাকে বলা হয়েছিল তা করেছিলেন এবং কয়েক মিনিট পরে এই বার্তাটি পাওয়া গেল যে তিনটি কিস্তিতে তার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলা হয়েছে।

তিনি ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানতে পারেন যে তাঁর প্রাপ্ত বার্তাটি কোনও অচেনা ব্যক্তির নয় কোনও ব্যাংক কর্মচারীর কাছ থেকে। মামলাটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ই-অপরাধ বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Logo-orginal