, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

Avatar jamil Ahamed

দেশের সাথে গাদ্দারী করা সে পুলিশ সদস্যের ৫ দিনের রিমান্ডে

প্রকাশ: ২০১৯-১২-১৯ ১৬:৩২:২৯ || আপডেট: ২০১৯-১২-১৯ ১৬:৩৪:০০

Spread the love

দেশের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ভারতে পাচারের অভিযোগে পুলিশ সদস্য দেবপ্রসাদ সাহার পাচঁ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। বৃহস্পতিবার সকালে তাকে যশোরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পুলিশের ১০ দিনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক সাইফুদ্দিন হুসাইন তার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত ১৭ ডিসেম্বর দেবপ্রসাদ সাহাকে যশোর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয় পুলিশ। বিচারক সাইফুদ্দিন হুসাইন বৃহস্পতিবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আজ রিমান্ড শুনানি শেষে বিচারক পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। দেব প্রসাদ সাহা খুলনার তেরখাদা উপজেলা সদরের সুরেন্দ্রনাথ সাহার ছেলে ।

গত ১৫ ডিসেম্বর বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান তার বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে মামলা করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দেব প্রসাদ সাহা ঢাকার উত্তরা ১ নম্বর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নে কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত। তিনি ২০১৪ সালের ২৭ ডিসেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ১৭ আগস্ট পর্যন্ত বেনাপোল অভিবাসন বিভাগে কর্মরত ছিলেন।
সেখানে কর্মরত থাকা অবস্থায় তিনি যখন-তখন নোম্যান্সল্যান্ড অতিক্রম করে ভারতে যাওয়া আসা করতেন। বেনাপোলে দায়িত্ব পালনকালে বিশেষ বাহিনীর দুই সদস্যের সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়। ওই দুই জন মাঝেমধ্যেই বেনাপোলে গিয়ে ভারতের এস চক্রবর্তী ও পিন্টু নামে দুই পুলিশের কাছে বাংলাদেশের গোপনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার করতেন।

২০১৮ সালের শেষের দিকে দেব প্রসাদ সাহা বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংবলিত একটি পেনড্রাইভ নোম্যান্সল্যান্ড অতিক্রম করে ভারতে পাচার করেন। এর ১৫ দিন পর তিনি বিশেষ বাহিনীর এক সদস্যের কাছ থেকে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংবলিত পেনড্রাইভ ভারতের এস চক্রবর্তী ও পিন্টুর কাছে হস্তান্তর করেন।

যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচারের মামলায় দেব প্রসাদ সাহাকে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করা হয়। রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে আদালত তার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। আমরা তাকে রিমান্ডে নিয়ে বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করবো।

Logo-orginal