, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

Avatar jamil Ahamed

যুবরাজ-নেতানিয়াহু সম্ভাব্য বৈঠক” অস্বীকার সৌদির

প্রকাশ: ২০২০-০২-১৪ ১৯:৩২:৫৫ || আপডেট: ২০২০-০২-১৪ ১৯:৩২:৫৫

Spread the love

নিউজ ডেস্কঃ উপসাগরীয় আরব রাষ্ট্রসমূহ ও ইস্রায়েলের মধ্যকার সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জল্পনা-কল্পনার মধ্যে সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান (এমবিএস) এবং ইস্রায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনজমিন নেতানিয়াহুর মধ্যে সম্ভাব্য বৈঠকের সংবাদকে অস্বীকার করেছেন।

ইসরায়েলি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়ায় বৃহস্পতিবার সৌদি মালিকানাধীন আল আরবিয়া ইংলিশ ওয়েবসাইটকে প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান বলেন, “সৌদি আরব ও ইস্রায়েলের মধ্যে কোনও বৈঠকের পরিকল্পনা নেই।

সৌদি আরবের নীতি অত্যন্ত স্পষ্ট যে, সৌদি আরব ও ইস্রায়েলের মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই এবং সৌদি ফিলিস্তিনের পক্ষে আছে।”

অভিযোগ রয়েছে, সৌদি ও ইসরাইল ইরানকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য খুবই আগ্রহী, কারণ তেহরান ক্রমশই উভয়ের জন্য প্রধান হুমকি হিসাবে দেখা যাচ্ছে ।

তবে সৌদি আরব বলছে যে ১৯৬৭ সালের মধ্য প্রাচ্যের যুদ্ধে ইসরাইলের দখলকৃত জমি থেকে ফিলিস্তিনিরা ভবিষ্যতের রাষ্ট্রের সন্ধান হলে বা সেক্ষেত্রে ইসরাইল নিজেদের প্রত্যাহার করলে তাদের সাথে যে কোনও সম্পর্ক আগ্রহী সৌদি আরব ।

নেতানিয়াহু গত মাসে হোয়াইট হাউসের একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন যেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি পরিকল্পনা করেছিলেন যা ফিলিস্তিনি সত্তা তৈরির প্রস্তাব করেছিল, কিন্তু ের আগে ২০০২ সালে সৌদি উদ্যোগ থেকে সরে এসেছিল আমেরিকা।

ফিলিস্তিনের নেতৃত্ব ট্রাম্পের এই পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, তিনি ইস্রায়েলের পক্ষে ব্যাপক সমর্থন করেছেন এবং তাদেরকে একটি কার্যকর স্বাধীন রাষ্ট্রকে অস্বীকার করেছেন ।

২০১৭ সালে, ইস্রায়েলের একজন মন্ত্রী বলেছিলেন যে, রিয়াদের সাথে তেলআবিবের গোপন যোগাযোগ রয়েছে, এবং ইস্রায়েল রেডিও জানিয়েছিল, প্রিন্স মোহাম্মদ ইস্রায়েলের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেছেন, তবে সেটিও সৌদি স্বীকার করেনি ।

যুবরাজ ফয়সাল বলেছেন, ইস্রায়েলের সাথে ফিলিস্তিনিদের সম্মতিতে “একটি ন্যায়বিচার ও সুষ্ঠু সমঝোতা” থাকলে সৌদি আরব সবসময় ইস্রায়েলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ব্যাপারে আগ্রহী ছিল।

তিনি আরও যোগ করেছেন, “এরই সংক্ষেপে সৌদি নীতি স্থির থাকবে। সূত্রঃ আল জাজিরা ।

Logo-orginal