, রোববার, ৯ আগস্ট ২০২০

Avatar admin

আমেরিকার মানব পাচার বিষয়ক কালো তালিকায় এমপি পাপলুর নাম

প্রকাশ: ২০২০-০৬-২৬ ১৪:৩০:৩৭ || আপডেট: ২০২০-০৬-২৬ ১৪:৩০:৩৯

Spread the love

যুক্তরাষ্ট্রের বার্ষিক মানবপাচার বিষয়ক প্রতিবেদন ‘ট্রাফিকিং ইন পার্সন রিপোর্ট ২০২০’-এ উঠে এসেছে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম পাপুলের নাম। এতে বলা হয়েছে কুয়েতি কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে ২০ হাজার বাংলাদেশিকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কুয়েতে নিয়ে বিপদে ফেলেছেন তিনি।

মানবপাচারের নানা অভিযোগে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমগুলোতে উঠে এসেছে এমপি পাপুলের নাম। তবে এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনেও তার নাম যুক্ত হলো।

মানবপাচারের অভিযোগে কুয়েতে গ্রেফতার হয়েছেন পাপুল। সম্প্রতি তার এক নারী সহযোগী ব্যবসায়ীকে কুয়েত সরকার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুয়েতি কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে ২০ হাজার বাংলাদেশিকে কুয়েতে নিয়ে যান এমপি পাপুল। কিন্তু সেখানে তাদের যে চাকরি দেয়ার কথা ছিল, বেশিরভাগই সেই চাকরি পাননি। যে বেতনের কথা বলা হয়েছিল, তারা তার চেয়ে কম বেতন পেয়েছেন বা একদমই পাননি।

প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, মালয়েশিয়ার চাকরিদাতা সংস্থাগুলো বাংলাদেশের ১০টি রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে মিলে দুই দেশের কর্মকর্তা ও রাজনীতিবিদদের ঘুষ দিয়ে বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠানোর বিষয়টিতে একচ্ছত্র আধিপত্য তৈরি করেছিল। তারা মালয়েশিয়া যেতে শ্রমিকদের কাছ থেকে চার লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে। যদিও এর জন্য সরকার নির্ধারিত ফি ছিল মাত্র ৩৭ হাজার টাকা। এর ফলে বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকরা বিপদে পড়ে এবং ঋণে জর্জরিত হয়।

প্রসঙ্গত, গত বছরের জুলাই মাসে কালের কণ্ঠে মালয়েশিয়ায় মানবপাচার এবং শ্রমিকদের দুর্বিষহ অবস্থা নিয়ে ছয় পর্বের বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। মালয়েশিয়া থেকে ফিরে প্রতিবেদনগুলো করেছিলেন কালের কণ্ঠের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক হায়দার আলী। তার ওই প্রতিবেদনগুলো দেশ-বিদেশের সংশ্লিষ্ট মহলের নজরে আসে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় মানবপাচার সংক্রান্ত অংশে কালের কণ্ঠে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনগুলোকেই উপজীব্য করা হয়েছে। সুত্রঃ কালের কন্ঠ ।

Logo-orginal