, রোববার, ৫ জুলাই ২০২০

Avatar admin

কুয়েতে বাংলাদেশী ও সিরিয়ানের টর্চারিং সেলের সন্ধান

প্রকাশ: ২০২০-০৬-০১ ১২:৩৬:০০ || আপডেট: ২০২০-০৬-০১ ১২:৩৬:০১

Spread the love

কুয়েতে সিরিয়া এবং বাংলাদেশী মিলে বানিয়েছিল ভুয়া গোয়েন্দা টিম,ছিল টর্চাল সেল, চলত নির্যাতন আদায় হত মুক্তিপণ ।

লৌহমর্ষক কাহিনী প্রকাশ পেয়েছে বাংলাদেশী ও সিরিয়ান সন্ত্রাসীকে আটকের পর ।

কুয়েতের চৌকস গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে তাদের সব অপকর্ম, আটক হয়েছে শীর্ষ লিডার ।

রোববার রাতে আরব টাইমসে প্রকাশিত সংবাদে জানাযায়, ২০২০ সালের শুরু দিকে সিরিয়ান ও বাংলাদেশী মিলে গঠন করে ভুয়া গোয়েন্দা টীম ।

নিরাপত্তা সুত্রে প্রকাশ, সিরিয়ান নাগরিকের অপকর্ম নিউজে প্রকাশিত হলে দেশটির গোয়েন্দা পুলিশ তাকে আটক করে জানতে পারে, তার সহযোগি হিসেবে রয়েছে একজন বাংলাদেশী নাগরিক ।

পুলিশি তদন্তে আটককৃতদের দেওয়া তথ্য অনুসারে আইনের আওতায় আনা হয় ভূয়া সিআইডি দলের সব সদস্যকে ।

সুত্রে প্রকাশ, একজন ভিকটিমের মামলার সুত্র ধরে পুলিশ জানতে পারে, গোয়েন্দা পরিচয় দিয়ে টর্চাল সেলে প্রবাসীদের আটক রেখে নির্যাতন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে মুক্তিপণ আদায় করা ছিল তাদের কাজ ।

তাদের নিশানা ছিল বাংলাদেশী, ভারতীয় ও অন্যন্যা এশিয়ান নাগরিকরা । হাছাবিরা বেশ কিছু এলাকায় কাজ বা অন্য কিছু করলে তাদেরকে চাঁদা দেওয়ার জন্য বাধ্য করা হত ।

গতরাতে হাছাবিয়া থেকে সংবাদটি নিয়ে আরটিমের কথা হয় একজন প্রবাসীর সাথে, যার বাড়ি নোয়াখালির সেনবাগে, তিনি জানান আটক বাংলাদেশী সন্ত্রাসীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ ছিল হাছাবিয়ার হকার ব্যবসায়ীরা, সিরিয়ান নাগরিকদের পুলিশ সাজিয়ে চাঁদা আদায় করা ছিল তার মুল কাজ ।

এইদিকে গতকাল কুয়েতের সোশ্যাল মিডিয়ায় সংবাদটি প্রকাশের পর তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা ।

আরটিএম কতৃপক্ষ কুয়েতসহ প্রবাসে অবস্থানরত বাংলাদেশীদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছে, বিদেশে আইন মেনে চলুন, নিজের মাতৃভূমির ইজ্জত ও আব্রু সমুন্নত রাখুন।

(তাদের হাতে নির্যাতিত বেশ কয়েকজনের ছবি)

Logo-orginal