, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

Avatar admin

কুয়েতে বন্ধ হচ্ছে কোম্পানির ফাইল” ক্ষতিগ্রস্থ হবে ১ লক্ষ প্রবাসী

প্রকাশ: ২০২০-০৮-০৯ ১১:৫৪:৩০ || আপডেট: ২০২০-০৮-০৯ ১১:৫৪:৩২

Spread the love

(ফাইল ছবি)
কুয়েতে ভিসা বিক্রির দায়ে কোম্পানির ফাইল বন্ধ রয়েছে এমন সব কোম্পানির পারমিট বাতিল হচ্ছে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিভিন্ন দেশের এক লক্ষ প্রবাসী।

রবিবার (৯ আগস্ট) আরব টাইমসে প্রকাশিত সংবাদে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

কুয়েত প্রান্তিক শ্রমিকদের কাছ থেকে শ্রমবাজার নিয়ন্ত্রণ এবং জনসংখ্যার সমন্বয় করার জন্য সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে স্বরাষ্ট্র ও শ্রম মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি অফিস এবং কোনও কার্যক্রম ছাড়াই নিবন্ধিত ভিসা ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণের জন্য তাদের প্রচেষ্টা তীব্র করেছে।

সুত্রে প্রকাশ, মোট ৪৫০ টি ভুয়া সংস্থার বিরুদ্ধে ভিসা বিক্রির অভিযোগে রেফার করা হয়েছে, যেখানে ২০০০ সালের মধ্যে প্রায় ১০০,০০০ প্রবাসীকে কুয়েত থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

বাস্তবে প্রবাসীরা এই সংস্থাগুলির পক্ষে কখনও কাজ করেননি, ভিসা ক্রয় করে বাহিরে কাজ করেছে,এমন সংস্থাগুলির ফাইলগুলি বন্ধ করা হবে।

৪৫০ টি সংস্থার বিষয়ে তদন্তে উঠে এসেছে, ৩০০ টি সংস্থার কোনও বাণিজ্যিক কার্যক্রম ছিল না তাদের প্রায় এক লক্ষ শ্রমিক নিবন্ধিত হয়েছে।

ভিসা বিক্রি ও শ্রম বাজারে বিভিন্ন অনিয়মের দায়ে ৫৫ কুয়েতিসহ ৫৩৫ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে কমিটি।

শ্রম ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি দ্রুত জানিয়েছে, এই সংস্থাগুলি প্রবাসীদের ভিসা প্রদান করায় কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে এবং বিদেশী শ্রমিকরা এসব সংস্থায় কখনো কাজ করেনি।

কুয়েতের খামার গুলি ভিসায় ব্যবসায় বেশী ব্যবহৃত হয়েছে বলে রিপোর্টে জানা গেছে।

এই খামারগুলির (মাজারা) ভিসা ব্যবসায়ের জন্য একটি প্রবেশদ্বার হয়েছে।

কুয়েতে ভিসা ব্যবসায়ীরা গত ২০১৮-১৯ সালে ৬৬ মিলিয়ন দিনার উপার্জন করেছে এবং দেখা গেছে যে আরব এবং এশীয় দেশ থেকে ৩০,০০০ কর্মী থেকে ভিসার দাম নিয়েছে ১৫০০ কেডির কাছাকাছি।

অন্য দেশের নাগরিকদের জন্য একই ভিসার দাম আরো বেশী ছিল বলে যোগ করেন সরকারী তদন্ত কমিটি।

একই বছর একামা নবায়ন করে ২১ মিলিয়ন দিনার উপার্জন করেছে অভিযুক্ত সংস্থাগুলি।

আরবী দৈনিক আল কাবাসের সুত্রে আরো জানাযায়,
ভিসা বিক্রি হয়েছে এমন সংস্থার ফাইলগুলিতে বর্তমানে স্বরাষ্ট্র ও আবাসিক বিষয়ক বিভাগ কঠোর হয়ে কাজ করেছেন।

২০২০ সালের এপ্রিল মাসে নির্ধারিত সাধারণ ক্ষমার সময়কালে যারা সুবিধাভোগ করেননি, সেসব অবৈধ প্রবাসীদের গ্রেপ্তারের পরিকল্পনা চলছে।

সম্পূর্ণ নতুন অভিযান শুরু হবে যা আগে কখনও দেখা যায়নি। এই ব্যবসায় জড়িত বেশিরভাগ খামারকে প্রথমে লক্ষ্য করা হবে।

Logo-orginal