২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
head banar

ফিরে দেখা: ২০১৫তে আলোচিত ছাত্রলীগ, খবর নেই ছাত্রদলের

Monday, 28/12/2015 @ 11:37 am

27-12-2015_0আরটিএমনিউজ২৪ডটকম,ঢাকা: ২০১৫ সাল প্রায় শেষের দিকে। হাতছানি দিয়ে ডাকছে নতুন বছর। নতুন বছরের আগমনে আরও একটি বছর কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে। নানা কারণেই ২০১৫ ছিল আলোচিত-সমালোচিত।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষককে পেটানো, প্রতিপক্ষের ওপর হামলা, অন্তর্দ্বন্দ্ব, সংঘর্ষ, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজির অভিযোগগুলো যেন ছাত্রলীগের সঙ্গী। সেই সঙ্গে ২০১৫ সালজুড়ে দখল-বাণিজ্য কিংবা যৌন সন্ত্রাসের মতো বিষয়েও ‘পিছিয়ে নেই’ সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। যদিও কিছু অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কারো কারো শাস্তি হয়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ ঘটনাই লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে গেছে। তবে আলোচনা কিংবা সমালোচনা কোনো কিছুতেই এ বছরে খুঁজে পাওয়া যায়নি বিএনপির ভাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রদলকে।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মারধরের অভিযোগ

গত ১২ জানুয়ারি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) আন্দোলনরত শিক্ষকদের ওপর ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। এ হামলায় ৩০ শিক্ষক আহত হন। তবে হামলার ঘটনা অস্বীকার করেন ছাত্রলীগ নেতারা।

এর আগে গত ১২ এপ্রিল বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ফেসবুকে একটি মন্তব্যকে কেন্দ্র করে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলমের ওপর হামলা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ ঘটনায় বুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে চালানো হামলার অভিযোগে চারজনকে আজীবনের জন্য বহিস্কার করে বিশ্ববিদ্যালয়ে কতৃপক্ষ। ওই দিনই তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত ২০ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট কমিটির জরুরি সভায় তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।  সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচিতে গত ৩০ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ হামলা চালায় বলে অভিযোগ ওঠে।

এই ঘটনার জেরে চার শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেছিলেন,‘এখানে যে ছাত্ররা শিক্ষকদের উপর হামলা চালিয়েছে, তারা আমার ছাত্র হয়ে থাকলে আমার গলায় দড়ি দিয়ে মরে যাওয়া উচিৎ।

তবে ঘটনার পরে জাফর ইকবাল বলিছিলেন, ছাত্রলীগের ছেলেরা ‘বাচ্চা’, ওরা হামলা করতে পারে না। যদিও শাহজালালে শিক্ষকদের উপর হামার পরের দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগকে আগাছামুক্ত করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে সংগঠনটি গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

যৌন নির্যাতনে ছাত্রলীগ

গত ২৬ এপ্রিল নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে ছাত্রলীগের হাতে নিজেই সহিংসতার শিকার হন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিকা। সেদিন সাড়ে দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সেই শিক্ষিকার গালে চড় মারেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আরজ মিয়া। এ ঘটনায় আরজকে ৫ মে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়।

গত ১৪ এপ্রিল (পহেলা বৈশাখ) রাত সাড়ে সাতটার দিকে সহপাঠীর সঙ্গে হলে ফেরার সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে যৌন হয়রানির শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। এই ঘটনায় গত ২৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

একই দিন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল এক ছাত্রীকে উত্যক্ত করতে গিয়ে গণধোলাইয়ের শিকার হন। পরে বহিস্কৃত হন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।

আধিপত্য বিস্তার:

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলি হয়। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ভোরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের ভিএক্স ও সিএফসি গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় আহত হন ৪ জন। সিরাজগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গত ১২ই জানুয়ারি ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে দফায়-দফায় সংঘর্ষে কমপক্ষে অর্ধশত ছাত্র ও ওসি আহত হন।

আহতদের বেশির ভাগই ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী। গেল ২০ এপ্রিল যশোর এম এম কলেজের হল থেকে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের বের করে দিয়ে হল দখলে নেয় ছাত্রলীগ। গত ১৪ মে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে টাঙ্গাইলে মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মোশারফ হোসেন নামে একজন ছাত্রলীগ নেতা নিহত হন।

গত ১৫ মে বরিশালের সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ হোস্টেলের সিট দখলকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ১০ জন আহত হন। গত ২২ মে ভোলার চরফ্যাশনে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষ, হামলা, ভাংচুর হয়। আর এতে আহত হন কমপক্ষে ২০ জন। রাজশাহী জেলার রাণীবাজারে গত ২৯ মে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের গোলাগুলিতে জীবন শেখ (২২) নামে এক ছাত্রলীগকর্মী নিহত হন। এতে কমপক্ষে পাঁচজন আহত হন।

চলতি বছরের ২৩ আগস্ট মাগুরার দোয়ারপাড়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হন সন্তানসম্ভবা নাজমা বেগম। আশঙ্কাজনক অবস্থায় মাগুরা সদর হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এক কন্যাশিশুর জন্ম দেন নাজমা।

রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৫ আগস্ট ছাত্রীকে উত্যক্তের ঘটনায় ছাত্রলীগের দু’গ্রুপ বিপরীত অবস্থানে দাঁড়ায়। এদিন উত্যক্তের ঘটনায় ছাত্রলীগেরে এক পক্ষ মানববন্ধন করে আর অন্য পক্ষ সশস্ত্র মহড়া দেয়। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর শাহীনুর রহমানকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ ওঠে।

২৬ আগস্ট চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সোহারাওয়ার্দী হলের সিট দখলকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশসহ ৬জন আহত  হন।

গত ৩ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে ছাত্রলীগের দু গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় ৩ পুলিশসহ ২০-২৫ জন আহত হন। পরে পুলিশ হলে তল্লাশী চালিয়ে ৩টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে।

একই দিনে ৩ নভেম্বর ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের জের ধরে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) স্নাতক পর্যায়ের শিক্ষা কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

৪ ডিসেম্বর ভর্তি পরীক্ষার্থীদের স্বাগত জানানোকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের এক নেতাসহ অন্তত ছয়জন আহত হন।  এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি নাজমুল হাসান সভাপতির পদ স্থগিত করা হয়।

৭ ডিসেম্বর আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের পর ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট) অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।  একই দিনে সিলেটে জেলা ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা ঝাড়ু মিছিল বের করে নতুন কমিটি প্রত্যাখ্যানের দাবি জানালে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ ও সাধারণ সম্পাদক এম. রায়হান চৌধুরীর নেতৃত্বে পৃথক পৃথক মিছিল থেকে প্রকাশ্য অস্ত্রের মহড়া দেয়।

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১২ ডিসেম্বর সরকারী তিতুমীর কলেজে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কমপক্ষে ছয়জন আহত হন।

১৭ ডিসেম্বর টেন্ডার ও শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডকে কেন্দ্র করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ, ১জন গুলিবিদ্ধসহ আহত ১০ হন।

এই ঘটনায় ১৯ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

‘প্রতিপক্ষ’ যখন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন

২৩ জুন চাকরির ‘দাবিতে’ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবনে তালা দিয়েছে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বহিরাগতরা। সেদিন দুপুর ১টার দিকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকারের কার্যলয়সহ সব অফিসে তালাবদ্ধ করে তারা।

চলতি বছরের ১৯ অক্টোবর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে হুমকি দেয় ছাত্রলীগের একাংশ।

অন্যান্য ঘটনা:

গত ২১ এপ্রিল সিটি নির্বাচনের সময় বাংলামোটরে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে ছাত্রলীগ হামলা চালায় বলে অভিযোগ রয়েছে সংগঠনটির বিরুদ্ধে।

১২ মে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রগতিশীল ছাত্রজোটের অবস্থান কর্মসূচিতে হামলা চালায় জবি ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা ।  ১৪ জুন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত এক সাংবাদিককে ছাত্রলীগের এক নেতা হুমকি দেন। পরে তিনি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হামলায় ছাত্রীসহ তিন শিক্ষার্থী আহত হন। চলতি বছরের ২৫ জুন এ ঘটনা ঘটে।

গত ১৭ ডিসেম্বর রাজধানীর নিউমার্কেটে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ঘটনায় ও্ইদিন রাতেই একটি মামলা হয়। এই হমলায় ঢাকা কলেজে ছাত্রলীগের সংম্পৃক্তার অভিযোগ রয়েছে।  আনোয়ার হোসেন স্বপন নামে এক ব্যবসায়ী বাদী হয়ে ধানমন্ডির হকার্স মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষে নিউমার্কেট থানায় মামলাটি করেন। এতে ঢাকা কলেজ ও এর আশেপাশের এলাকার ছাত্ররাজনীতির সঙ্গে যুক্ত অজ্ঞাত ১৫০- ২০০ জনকে আসামি করা হয়।

২১ ডিসেম্বর মারধরের অভিযোগ এনে ঢাকার সরকারি বাঙলা কলেজের ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে কলেজের এক ছাত্রী মিরপুর থানায় মামলা করেন।

গত মার্চে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ইংল্যান্ডকে পরাজিত করার আনন্দে টিএসসিতে ছাত্রলীগ নেতারা কয়েকজন নারী ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে জোর করে রং মাখিয়ে দেয়। এর প্রতিবাদ করলে তারা সাংবাদিকদের ওপরওহামলা চালায়। পরে ওই ঘটনায় চার ছাত্রলীগ নেতাকে বহিস্কার করা হয়।

বস্তুত, ছাত্রলীগের বিভিন্ন ঘটনায় পরিপ্রেক্ষিতে সংগঠনের পক্ষ থেকে অভিযুক্তদের ‘বহিষ্কার’ করা হয়। কিছুদিন পরে আবার সংগঠনের পক্ষ থেকে ‘বহিষ্কারাদেশ’ তুলেও নেয়া হয়। তবে কী সেই ‘বহিষ্কার’ কেবলই আইওয়াশ? তবে ‘আইওয়াশের’ বিষয়টি  মানতে নারাজ ছাত্রলীগের সাবেক এবং বর্তমান নেতারা।

তারা মনে করেন, বহিষ্কার হলো সংশোধনের একটি প্রক্রিয়া।

ভালো কিছুরও অংশীদার

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের উদ্যোগে ৪ নভেম্বর রক্তদান কর্মসূচি পালন করা হয়। এদিকে ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনের দুই মেয়রের ‘ক্লিন ও সবুজ ঢাকা’ করার যাত্রার সঙ্গে ছাত্রলীগও ‘স্বপ্নসারথি’ হতে চায়’ ছাত্রলীগ।

ছাত্রদল: তবে ২০১৫ সালে বিএনপির ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের উল্লেখযোগ্য কোনো সাংগাঠনিক কার্যক্রম খুঁজে পাওয়া যায়নি।

প্রিয়.কম/আরটিএমনিউজ২৪ডটকম/এন এ কে

এই পাতার আরো সংবাদ
bg1
bg1
top-banner
bg1