, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০

Avatar rtm

ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’: ৪ নম্বর সংকেত, চট্টগ্রামে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি

প্রকাশ: ২০১৮-১০-১০ ০৯:৫২:৫২ || আপডেট: ২০১৮-১০-১০ ০৯:৫৭:৫৯

Spread the love
ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’: ৪ নম্বর সংকেত, চট্টগ্রামে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি

মোঃ জাহেদুল ইসলাম, আরটিএমনিউজ২৪ডটকম: পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে অগ্রসর হতে পারে।

আবহাওয়া অফিসের এক বুলেটিনে জানানো হয়েছে, বুধবার (১০ অক্টোবর) সকাল ৬টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৪৫ কি.মি দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্র বন্দর থেকে ৯০০ কি.মি দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮১৫ কি.মি দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮১৫ কি.মি দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিলো। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কি.মি এর মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৯০ কি.মি.। যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়া আকারে ১১০ কি.মি. পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা এবং পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) ভোরে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানতে পারে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র প্রভাবে মঙ্গলবার ভোর থেকে শুরু হওয়া গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি কখনো টানা ও কখনো থেমে থেমে বিকাল পর্যন্ত চলে; রাতে বিরতি দিয়ে সকাল থেকে ফের বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ফলে নগরের নিম্নাঞ্চলে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়।

এই বৃষ্টিতে নগরের চকবাজার, বাদুরতলা, কাপাসগোলা, বহদ্দারহাট, বাকলিয়া, আগ্রাবাদ সিডিএ এলাকা, হালিশহর, ছোটপুল, বড় পুলসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী, অফিসগামী জনগণের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, নগরের অনেক এলাকায় নালা নর্দমা ও নালা সংস্কার এবং সম্প্রসারণ কাজ চলছে। এ কাজ যথাযথভাবে সম্পন্ন না করায় অধিকাংশ নালা নর্দমা ভরাট হয়ে যায়। ফলে বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চলে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়।

Logo-orginal