, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯

admin

এবার শ্রীলংকায় ভেঙ্গে ফেলা হল মসজিদ

প্রকাশ: ২০১৯-০৬-১০ ২২:২৮:৪১ || আপডেট: ২০১৯-০৬-১০ ২২:২৮:৪১

Spread the love

নিউজ ডেস্কঃ ইস্টার সানডেতে সিরিজ বোমা হামলার পর থেকে আতঙ্ক ও শঙ্কায় দিন কাটছে শ্রীলঙ্কার মুসলিমদের।

পুলিশের তল্লাশি এবং স্থানীয়দের সন্দেহের দৃষ্টির কারণে একটি মসজিদ ভেঙে ফেলতে বাধ্য হয়েছে সেখানকার মুসলিমরা।

এমএইচএম আকবর খান বলেন, ইস্টার হামলার পর অমুসলিমরা আমাদের সবাইকে সন্ত্রাসী হিসেবে দেখতে শুরু করেছে।

শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডেতে গির্জা ও বিলাসবহুল হোটেলে আত্মঘাতী হামলার কথাই বলছিলেন তিনি যে ঘটনায় নিহত হয়েছে প্রায় আড়াইশ মানুষ। আর এ হামলার জন্য দায়ী করা হয় একটি জঙ্গি গোষ্ঠীকে।

এরপর পুরো রোজার মাস জুড়ে মুসলিমরা যখন রোজা পালন করছিল, তখন উগ্রবাদীদের কাছ থেকে দূরে থাকার জন্য মসজিদটি ভেঙে ফেলে তারা।

আকবর খান মাদাতুগামার প্রধান মসজিদের একজন ট্রাস্টি। তিনি ব্যাখ্যা করেছেন কেন এমনটি করলো সেখানকার মুসলিমরা।

তিনি বলেন, ইস্টার হামলার পর পুলিশ কয়েক দফা তল্লাশি করেছে মসজিদটিকে। এতে মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। মুসলিমদের সঙ্গে অন্য সম্প্রদায়গুলোর অবিশ্বাসও বেড়ে যায়।

যে মসজিদটি ধ্বংস করা হয় সেটিতে নিষিদ্ধ ঘোষিত ন্যাশনাল তাওহীদ জামাত বা এনটিজে সদস্যরা বেশি যাতায়াত করতো বলে মনে করা হয়। পরে এনটিজে পরিচালিত ওই মসজিদটি সিলগালা করে বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ।

আকবর খান বলেন, ‘আমাদের শহরে অন্য যে মসজিদ আছে সেটি মুসলিম পরিবারগুলোর জন্য যথেষ্ট। কয়েক বছর আগে অন্য একটি গোষ্ঠী প্রশ্নবিদ্ধ মসজিদটি নির্মাণ করে।’

পরে মে মাসে পুরনো মসজিদের সদস্যরা একটি সভায় মিলিত হয়ে সর্বসম্মত হয়ে বিতর্কিত মসজিদটি ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরে স্থানীয়রা সেটি ধ্বংস করে। তিনি বলেন, ‘মিনার, নামাজ কক্ষ ধ্বংস করে ভবনটি পুরনো মালিকের হাতে দিয়ে দেয়া হয়েছে।’

শ্রীলঙ্কায় ৭০ ভাগ মানুষ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। আর মুসলিম দশ ভাগের মতো। তবে মসজিদ ধ্বংস করে ফেলার সিদ্ধান্ত সবাই ভালোভাবে নেয়নি। শ্রীলঙ্কায় মুসলিমদের সর্বোচ্চ তাত্ত্বিক কর্তৃপক্ষ অল সিলন জামিয়াতুল উলামা বলছে, প্রার্থনার জায়গার ক্ষতি করা উচিত নয়।

সংস্থার পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘মসজিদ আল্লাহর ঘর। এর ধ্বংস বা ক্ষতি করা ইসলামি চেতনার পরিপন্থী।’

শ্রীলঙ্কা সরকার বলছে, দেশটিতে প্রায় ২ হাজার ৫৯৬টি রেজিস্টার্ড মসজিদ আছে। শ্রীলঙ্কার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড: আ রামিজ বলছেন, মসজিদ ধ্বংসের পন্থা বেছে নিলে এমন শত শত মসজিদ ধ্বংস করতে হবে।

বোমা হামলার ঘটনার পর মুখ ঢেকে রাখায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার। ওই হামলার পর দেশটিতে এখনো জরুরি অবস্থা জারি রয়েছে, শেষ হবে আগামী ২২শে জুন।

কিন্তু দেশটির মুসলিমরা সবদিক থেকেই বেশ চাপের মধ্যে আছে। ওই ঘটনার পর বহু জায়গায় মুসলিমদের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আক্রান্ত হয়েছে। ড: রামিজ বলছেন, তিনি নিজেও হেনস্থার শিকার হয়েছেন। সুত্রঃ আওয়ার ইসলাম ।

সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে শেষবারের
কুয়েত সিটিঃ ভারতীয় পার্সপোর্ট নিয়ে কুয়েতে প্রবেশ করার চেষ্টায়য় মোস্ট ওয়ান্টেড আসামী এক বাংলাদেশী নাগরিককে
ইহুদিবাদী ইসরাইলের একটি অস্ত্র কারখানায় আগুন লেগে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। অনেক দূর থেকেই ধোয়ার
সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ট্রেনের ধাক্কায় একটি মাইক্রোবাসের বরসহ ৯ জন যাত্রী নিহত হয়েছেন। নিহত বরযাত্রী সুমনের
সাতকানিয়াঃ চট্টগ্রামের সাংগু নদীর স্রোতে ভেঙে পড়ল তিন তলা ভবন। ভবনটির মালিক জনাব খলিলুর রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Logo-orginal